শান্তা পালের অভিযোগ, অস্বীকার আয়োজকদের

শান্তা পালের অভিযোগ, অস্বীকার আয়োজকদের

ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১ 0 By বিনোদন২৪.কম

বাংলাদেশের মডেল ও অভিনেত্রী শান্তা পাল অভিযোগ করেছেন যে, সৌন্দর্য প্রতিযোগিতা ‘মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ’-এর অডিশনে যোগ্য প্রতিযোগীদের বঞ্চিত করে অন্যদের অন্যায়ভাবে সুযোগ পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। এক ফেসবুক পোস্টে এমনই অভিযোগ করলেন তিনি।

শান্তার অভিযোগ ফ্লোরা ব্যাঙ্কের মালিক ডিউকের দিকে। শান্তার দাবি, মডেল তানজিলা জামান মিথিলার সঙ্গে ডিউকের বিশেষ সম্পর্ক আছে। সেই কারণে অডিশন না দিয়েই প্রথম ৫০ জনের মধ্যে সুযোগ পেয়েছেন মিথিলা।

মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের ন্যাশনাল ডিরেক্টর শফিক ইসলাম বলেছেন, ‘যারা বাদ পড়েছে, তারা নিজেদের প্রথম পঞ্চাশে দেখতে না পেয়ে হিংসায় এই ধরনের মিথ্যাচার করছে। বিশেষ করে একজন মডেলই এই অভিযোগ করছে। তার মানসিক সমস্যা আছে। এই অনুষ্ঠান টিভিতে দেখানো হবে। অডিশনের ভিডিওসহ সব প্রমাণ আমাদের কাছে আছে।’

ভারতীয় একটি গণমাধ্যমকে শান্তা বলেছেন, ‘আমি অনেকদিন ধরে মডেলিং করছি। আন্তর্জাতিক সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছি। ফলে এই ধরনের প্রতিযোগিতায় কী কী নিয়ম থাকে, সেটা আমি ভালোই জানি। আমি যেহেতু বাংলাদেশে আছি সেহেতু এই সময়কে কাজে লাগিয়ে নতুন কিছু শেখার লক্ষ্যে আমি মিস ইউনিভার্স-২০২১ এর মঞ্চে উপস্থিত হই এবং ৮/১০ জনের মতো আমিও খুবই সাধারণ পরিবারের মেয়ে হয়ে ওখানে অডিশন দিতে চেয়েছিলাম। তাই আমি চুপ করে লাইনে দাঁড়াই। প্রায় তিন ঘন্টা আমি লাইনে ছিলাম এবং অপেক্ষায় ছিলাম কখন আমার অডিশন শুরু হবে। এর মধ্যে আমি দেখতে পাই আমাদের সিনিয়র মডেল তানজিলা জামান মিথিলাকে। যিনি অলরেডি বলেছেন যে উনি বলিউডে ফিল্ম করছেন এবং অনেক ভালো ভালো কাজ করছেন এবং তার এই সাফল্যে আমরা সবাই খুশি। তিনি আরও এগিয়ে যাবেন এই প্রত্যাশা সবসময় করি। তিনি তেমন অপেক্ষা না করেই বেরিয়ে যান। আমি স্পষ্ট দেখলাম, যেখানে আমি তিন ঘন্টা ধরে অপেক্ষা করে বসে আছি সেখানে অডিশন না দিয়েই মিথিলা ভেন্যু থেকে বেরিয়ে গেলেন। উনি ফিরে এসে অডিশন দেননি। কারণ অডিশনের শেষমুহূর্ত পর্যন্ত আমি ছিলাম। ওখানকার সহকর্মী ফটোগ্রাফার এবং চ্যানেলের সবাই বলেন, মিথিলা চলে গেছেন। শুরু থেকে শেষপর্যন্ত ওকে আর দেখতে পারিনি। কিন্তু প্রতিযোগিতার ফল প্রকাশ হওয়ার পর জানলাম, উনি সেরা ৫০-এ জায়গা করে নিয়েছেন।