আমার মৃত্যুর জন্য হিশাম দায়ী থাকবে: তমা মির্জা

আমার মৃত্যুর জন্য হিশাম দায়ী থাকবে: তমা মির্জা

ডিসেম্বর ২৭, ২০২০ 0 By বিনোদন২৪.কম

হানিমুনের পর দেশে ফিরে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা তমা মির্জা ও তার স্বামী বাড্ডা থানায় পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা করেন। যৌতুক, নির্যাতন এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে গত ৫ ডিসেম্বর মামলা করেছেন তমা। অন্যদিকে মারধর ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে গত ৬ ডিসেম্বর মামলা করেন এই অভিনেত্রীর স্বামী হিশাম চিশতী।

মামলা করে কানাডা চলে গেছেন হিশাম। সেখানে বসেই তমা মির্জার বিরুদ্ধে করেছেন নানা অভিযোগ তুলেছেন। এবার সেই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মুখ খুলেছেন তমা মির্জা। শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) রাত ১০টার দিকে নিজের ফেসবুক আইডি থেকে লাইভে আসেন তিনি। এ সময় স্বামী হিশাম চিশতীর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরেন তমা মির্জা।

সবার সত্য জানা উচিত উল্লেখ করে তমা জানান, এক বন্ধুর মাধ্যমে হিশামের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। হিশামের ছোট ছোট অনেক বিষয় তমার মন গলায়। খুব অল্প সময়ের পরিচয়ে তমার মনে জায়গা করে নেন হিশাম। স্বল্পদিনের পরিচয়েই বিয়ের সিদ্ধান্ধ নেন তারা। তমার স্বামী হিশাম চিশতী কানাডার টরন্টোতে থাকেন। সেখানে তিনি আবাসন ব্যবসা ও রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তিনি কানাডায় নির্বাচন করেছিলেন।

তিনি বলেন, স্ত্রীর প্রতি প্রতিটি স্বামীর দায়িত্ব রয়েছে। স্ত্রীর খরচ তো স্বামীই বহন করবে সেটি নিয়ে ফেসবুকে কথা বলা কতটুকু যুক্তিসঙ্গত? হিশাম বিভিন্ন জায়গায় বলেছেন সে নাকি আমাকে ২০ লাখ টাকা ধার দিয়েছেন তার প্রমাণ কোথায়? কেউতো এতোগুলো টাকা হাতে দেয় না। কিছু না কিছু প্রমাণ অবশ্যই আছে সেই প্রমাণ প্রকাশ্যে আসুক।

যোগ করে তমা বলেন, এরপর যদি হিশাম আমার আর কোনো ব্যক্তিগত ছবি বা বিষয় নিয়ে বাড়াবাড়ি করে বা প্রকাশ করে তাহলে আমি যদি আত্মহত্যা করি তার জন্য হিশাম দায়ী থাকবে। হিশাম ফেসবুকে আমাকে নিয়ে নোংরা পোস্ট দিতো। সে আমার কাছে এসবের জন্য মাফও চেয়েছে। বলেছে, আর কখনো আমাকে নিয়ে বাজে পোস্ট করবে না।

ডিভোর্সের প্রসঙ্গ টেনে এ নায়িকা বলেন, ব্যক্তিগত বিষয়টি ব্যক্তিগত রাখতে চেয়েছিলাম। প্রকাশ্যে আসুক কখনোই চাইনি। এখন ব্যক্তিগত বিষয়ে কথা বলতে বাধ্য হচ্ছি। ২০১৯ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর প্রথমবার ডির্ভোস ফাইল করি। ফাইলে সব কারণ উল্লেখ আছে। আমার শ্বাশুড়ি কিছু দিন আগে মারা গেছেন। তিনি অনেক অসুস্থ ছিলেন উইল চেয়ারে বসে চলাফেরা করতেন। সে অসুস্থ শরীর নিয়ে আমার বাবার বাসায় এসে আব্বু-আম্মুর কাছে অনুরোধ করেন যে, তিনি বেঁচে থাকতে তমার ডির্ভোস দেখতে পারবেন না, মেনে নিতে পারবেন না। আমি মৃত্যুপথযাত্রী অনুরোধ করছি আমার মুখের তাকিয়ে হলেও ডির্ভোস দিও না তমা। তখন মা আমাকে অনেক বুঝিয়ে শ্বশুরবাড়ি পাঠান। ফের সংসার শুরু করি। হিশামকে আরেকটা সুযোগ দেই। এরপরও পরিবর্তন না পেয়ে দুইবার ডির্ভোস নিতে গিয়েছি। শেষ বার হিশাম তার পছন্দের আইনজীবীর কাছে নিয়ে যান ডির্ভোসের জন্য। সেখানে গিয়ে হিশাম তার আইনজীবীকে মারধর করেন।

হিশাম তমাকে নিয়মিত মারধর করত জানিয়ে তিনি বলেন, অমানবিক নির্যাতনের কারণে বেশ কিছু দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলাম। হাসপাতাল থেকে বাসায় এনে আমাকে আটকিয়ে রাখেন। সেখান থেকে অনেক কষ্ট করে পালিয়ে আসি। পুরো শরীর জুড়ে নির্যাতনের চিহ্ন যা পুলিশ দেখেছেন। পুলিশ আমাকে মামলা করতে বলেছিল। তার ভালোর জন্যই মামলা করিনি। করলে হয়তো আজ আমাকে এত কষ্ট পেতে হতো না।

তমা মির্জা বলেন, সে আমাকে বিদেশ নিয়ে যায়নি। আমি একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে গিয়েছিলাম। স্বামী হিসেবে সে আমার সঙ্গে গিয়েছিল। তাকে নাগরিকত্বের জন্যেও বিয়ে করিনি। যদি তাই করতাম তাহলে গত দুই বছরেও কেন আমি নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করলাম না? এখনও দেশে কেন? সে সরকারের ৪৫ হাজার ডলার ট্যাক্স ফাঁকি দিয়েছে। গাড়ি বিক্রি করে আমাকে সে টাকা পরিশোধ করতে বলত। আমি রাজি না হওয়ায় সে আমাকে মারধর করেছে। স্ত্রী হিসেবে রাজি হতাম স্বামীর বিপথে পাশে থাকা আমার দায়িত্ব। যে মানুষটি আমার পরিবার নিয়ে নোংরা নোংরা কথা বলে আমাকে নিয়মিত নির্যাতন করে সেই মানুষটিক কিভাবে হেল্প করব আপনারই বলেন।

তিনি বলেন, মামলায় সে বলেছে আমি তাকে হত্যা করতে চেয়েছি। তার পরিবার ও বন্ধুরা আমাকে বলেছে সে মাত্র ৫ মিনিটের জন্য আমার সাথে কথা বলতে চায়। পরের দিন উভয় পরিবার নিয়ে বসে ডির্ভোস হওয়ার কথা ছিল। তখন প্রায় রাত ৩টা, সে আমার বাসায় আসে। এসেই সে আমার ফোন নিয়ে নেয়। পাসওয়ার্ড চেঞ্জ করে দেয়। সে নিজেই আমার ফেসবুক আইডি থেকে আজেবাজে পোস্ট দেওয়া শুরু করে। তখন তার পকেটে ৪০টির মতো ঘুমের ওষুধ ছিল। মাতাল অবস্থায় ছিল। ওর ফ্যামিলিকে ফোন করে এসব জানালে তখন তারা বলে, আমরা ওকে আটকাতে পারি নাই। সে যা মন চায় করুক। আমরা কিছু জানি না। তখন আমি ৯৯৯ এ ফোন করে পুলিশের সাহায্য চাই। অথচ সে বলেছে আমরা নাকি মেরে তার হাত পা ভেঙে দিয়েছি। হিশাম সিএনজি করে দারোয়ান নিয়ে এসেছেন অথচ বলছেন ড্রাইভার নিয়ে এসেছেন। পুলিশ এসে সব বিছু নিয়ন্ত্রণে আনেন। তাকে মারতে চাইলে ৯৯৯ এ কেন কল দেব? তখন তিনি পুলিশের সাথে গেলেন না কেন? বিষয়টি পুলিশকে অবগত করলেন না কেন? পুলিশ চলে যাবার পর ফের বাবা মায়ের সামনে মারধর করলেন কেন পুলিশ এনেছি। যখন আমাকে রক্ষা করতে আব্বু-আম্মু আসলেন তখন তাদের গায়েও হাত তুলেন। আম্মুর পিট জুড়ে আঘাতের চিহ্ন। তিনি বলেছেন তাকে নাকি মধ্যযুগীয় কায়দায় মেরেছি। যদি মেরে থাকি তাহলে সে চিকিৎসা না নিয়ে কিভাবে দেশ ত্যাগ করেন? হিশাম বিচ্ছেদ চাইলে ঘটনা এতো দূর আসে না। যে অপরাধী তার শাস্তি হওয়া উচিত। হিশামের অপকর্মের অনেক প্রমাণ আছে। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য অনেক ভাবে চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। নানা কারণে অত্যাচারের স্বাকীর হয়ে মামলা করতে বাধ্য হই।

প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালে শাহীন সুমন পরিচালিত ‘মনে বড় কষ্ট’ সিনেমার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় তমা মির্জার। এরপর অনন্ত হীরার ‘ও আমার দেশের মাটি’, শাহাদাত হোসেন লিটনের ‘তোমার কাছে ঋণী’ নামের চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি। ২০১৫ সালে শাহনেওয়াজ কাকলী পরিচালিত ‘নদীজন’ সিনেমায় শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। তমা অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ‘চল পালাই’ ও পূর্ণ মিউজিক্যাল ফিল্ম ‘গহীনের গান’। এরপর চলচ্চিত্রে না দেখা গেলেও দেশ টিভির ‘প্রিয়তমা’র প্রিয় মুখ’ নিয়মিত উপস্থাপন করছেন। ২০১৯ সালের ৭ মে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কানাডার নাগরিক হিশাম চিশতিকে বিয়ে করেন তমা মির্জা।