প্রথম নাটকে ১,২০০ টাকা পেয়েছিলেন জাহিদ হাসান

0
30

আজ রবিবার ধারাবাহিকে বোকা বোকা চাহনিতে মুচকি হাসিতে মুগ্ধ করা আনিস, কিংবা শ্রাবন মেঘের দিন সিনেমার গ্রাম্য গায়েন মতি। কখনও আরমান ভাই, কখনও অপু হয়ে দর্শকদের বিমোহিত করেছেন। তিনি দর্শকপ্রিয় অভিনেতা জাহিদ হাসান। ১৯৬৭ সালের এই দিনে জন্মগ্রহণ করা স্বনামধন্য এ অভিনেতা আজ পেরোচ্ছেন জীবনের ৫৩ বছর।

১ অক্টোবর থেকে বিটিভিতে তার শুটিং শুরু হয়েছে চলবে ১০ অক্টোবর পর্যন্ত। জন্মদিন প্রসঙ্গে জাহিদ হাসান বলেন, জন্মদিন নিয়ে কখনই কোন বাড়তি পরিকল্পনা থাকে না। ঘরোয়াভাবে জন্মদিন পালন করা হয়। বিগত বছরে জন্মদিনের দিন শুটিং রাখতাম না তবে এবারের জন্মদিন কাটছে শুটিং করে। নতুন একটি নাটক নির্মাণ করছি। এটা নিয়েই ব্যস্ততা। সামনের দিনগুলো যেন সম্মানের সঙ্গে কাটাতে পারি সবার কাছে সে দোয়া চাই। করোনাকালে দেশের মানুষ ভাল থাকুক এটাই প্রত্যাশা করি।

নব্বই দশকের শুরুতে টিভি নাটকের নায়কদের মধ্যে তিনি ছিলেন উজ্জ্বল মুখ। বর্ণিল ক্যারিয়ারে দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার,পরপর পাঁচবারসহ মোট সর্বোচ্চ আটবার মেরিল প্রথম আলো পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কার পেয়েছেন। বিপাশা হায়াত, শমী কায়সার, আফসানা মিমি থেকে তারিন, তিশা থেকে শুরু করে এই সময়ের অনেকের সঙ্গেই জুটি বেঁধে কাজ করেছেন। অভিনয়ে তিনি এখনো নিয়মিত।

পড়াশুনার পাঠ চুকিয়ে যুক্ত হন মঞ্চনাটকের সঙ্গে। ১৯৯০ সালে টিভি নাটকে প্রথম কাজ করেন। এরপর ধীরে ধীরে টিভি নাটকে নিজেকে একজন প্রতিশ্রুতিশীল অভিনেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন।

জাহিদ হাসান স্কুল পাশ করে সিরাজগঞ্জ শহরেই কলেজে ভর্তি হন। কলেজে ভর্তি হওয়ার পর অভিনয়ের নেশাটা পেয়ে বসে তাকে। যার জন্য কোথাও নাটক বা যাত্রাপালা হলে ছুটে যেত এই অভিনেতা। কলেজে পড়ার সময়ে তরুণ সম্প্রদায় নাট্যদলে যোগ দেন। সেই দলের হয়ে ‘সাত পুরুষের ঋণ’ নাটকে অভিনয় করেন। নাটকটি ১৯৮৪ সালের ১০ আগস্ট বিটিভিতে সরাসরি প্রচারিত হয়েছিলো।

ইন্টারমিডিয়েট পাশ করে জাহিদ হাসানের বেশিরভাগ বন্ধু রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। জাহিদ হাসান চাচ্ছিলেন ঢাকায় আসতে, না হলে তার অভিনয়ের স্বপ্ন পূরণ হবে না। কিন্তু বাড়ি থেকে তা চাচ্ছিল না। ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিও হয়েছিলেন। কিন্তু, মনটা পড়ে থাকলো ঢাকা শহরে। কিছুদিন সেখানে পড়ার পর চলে আসেন ঢাকায়। পড়ালেখার পাশাপাশি ভেতরে ভেতরে স্বপ্ন দেখেন অভিনয় করবেন।

জাহিদ হাসেনর আব্বা-আম্মা চাইতেন ছেলে ডাক্তার হোক। কিন্তু, তিনি চাইতেন অভিনেতা হবেন। এজন্য অভিমান করে অনেকদিন বাড়ি থেকে টাকা নিইনি। অভিমান করার কারণে অনেক কষ্টও করতে হয়েছে। তারপরও ঢাকায় পড়ালেখা ও নাটক দুটিই করে গেছেন।

১৯৮৬ সালে ‘বলবান’ নামের একটি সিনেমায় অভিনয় করার সুযোগ পান। এটি ছিলো বাংলাদেশ-শ্রীলংকা ও পাকিস্তান প্রযোজিত একটি সিনেমা। ১৯৮৯ সালে বড় একটি সুযোগ আসে তার জীবনে। বিটিভিতে তালিকাভুক্ত হওয়ার জন্য অডিশন দেন। পাশও করেন।

১৯৯০ সাল বড় একটি টার্নিংয়ের বছর জাহিদ হাসেনের জন্য। ঢাকায় তখন মঞ্চর্মীদের বেশ ভালো অবস্থা। সেবছর মঞ্চ নাটক শুরু করেন। যোগ দেন ‘নাট্যকেন্দ্র’-এ। এছাড়া একই বছর প্রথমবার টিভি নাটকে অভিনয় করার সুযোগ এসে যায় জাহিদ হাসেনর সামনে।

তার প্রথম অভিনীত টিভি নাটক ‘জীবন যেমন’। নাটকটি প্রযোজনা করেছিলেন আলীমুজ্জামান দুলু। ভাগ্য প্রসন্ন ছিলো বলে প্রথম টিভি নাটকেই গুরুত্বপূর্ণ একটি চরিত্র যান তিনি। প্রথম নাটকে অভিনয় করে ১,২০০ টাকা পান জাহিদ হাসান। সেই যে শুরু আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি।

বিশেষ করে হুমায়ূন আহমেদের নক্ষত্রের রাত, আজ রবিবার ও ছোট ছোট ঢেউ ধারাবাহিকের অভিনয়ের জন্য বেশ সুপরিচিত হয়ে উঠেন। এরপর ঠিকানা, সবুজ ছায়া, সবুজ সাথী, নাটের গুরু, ছায়াবৃক্ষ, অন্ধ শিকারী, নীলাঞ্জনা, সমুদ্র বিলাস প্রাইভেট লিমিটেড, দ্বৈরথ, পুত্রদায়, বিপরীতে হিত, বন্ধন, কুসুম কাহিনী, প্যাকেজ সংবাদ, কুসুম কুসুম ভালোবাসাসহ বহু টিভি নাটকে অভিনয় করে হয়ে উঠেন সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেতা।

লাল নীল বেগুনি ধারাবাহিক নাটক দিয়ে অভিনেতার পাশাপাশি পরিচালক হিসেবেও নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন, যদিও এই নাটক নিয়ে তিনি দীর্ঘ সময় কাটিয়েছিলেন। স্বল্প সময়ের জন্য আমাদের নুরুলহুদা নাটকে উপস্থিত হয়েও সমুজ্জ্বল ছিলেন।

নিজের ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় পর্যায় শুরু করেছিলেন গ্র‍্যাজুয়েট-এর মত জনপ্রিয় নাটক দিয়ে, আরমান ভাই সিরিজ দিয়ে নিজের জনপ্রিয়তা আরো দ্বিগুণ করেন। এছাড়া মন্ত্রী মহোদয়ের আগমনের শুভেচ্ছা, হাবিবের সংসার, চোর কুঠুরি, একা, ভূত-অদ্ভুত, শেষে এসে অবশেষেসহ অসংখ্য জনপ্রিয় নাটকে অভিনয় করেছেন।

টেলিভিশন নাটকের বাইরে নব্বইয়ের দশকে জীবন সঙ্গীর পর শ্রাবন মেঘের দিন চলচ্চিত্রে অভিনয় করে বেশ প্রশংসিত হন। এরপর শঙ্খনাদ, মেড ইন বাংলাদেশ, আমার আছে জল, ঝন্টু মন্টু দুই ভাই, প্রজাপতি ছবিতে অভিনয় করেছেন। হালদায় অভিনয় করে বেশ প্রশংসিত হয়েছেন, সর্বশেষ মুক্তি পেয়েছে তার অভিনীত সাপলুডু সিনেমা। মুক্তির অপেক্ষায় আছে শনিবার বিকেল।

ব্যক্তিজীবনে দেশসেরা মডেল সাদিয়া ইসলাম মৌকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে রয়েছে দুই সন্তান। ব্যক্তিজীবন ও মিডিয়া জীবন দুই মাধ্যমই বর্ণিল তার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here