দেশে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘মুলান’ ও ‘টেনেট’

দেশে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘মুলান’ ও ‘টেনেট’

অক্টোবর ২০, ২০২০ 0 By বিনোদন২৪.কম

চলতি বছরে সিনেমা হলেই মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল হলিউডের অন্যতম সিনেমা ‘মুলান’। করোনা মহামারির কারণে বিশ্বজুড়ে বড় পর্দায় সিনেমাটি উপভোগের সুযোগ পাননি দর্শক। ৪ সেপ্টেম্বর থেকে লাইভ-অ্যাকশনধর্মী এ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছে ওটিটি প্লাটফর্ম ডিজনি প্লাসে।

ছবিটি এবার সিনেমা হলেও মুক্তি পেতে চলেছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। এটি মুক্তি পাচ্ছে বাংলাদেশেও। স্টার সিনেপ্লেক্সে ছবিটি মুক্তি পাবে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা মেসবাহ উদ্দিন আহমেদ।

তিনি জানান, ‘মুলান’ শিগগিরই আসছে স্টার সিনেপ্লেক্সে। তবে আসছে সপ্তাহেই ছবিটি মুক্তি পাবে কী না সেটি নিশ্চিত করেননি তিনি।

‘মুলান’ মূলত চীনের ইতিহাস ও ঐতিহ্য নিয়ে নির্মিত একটি ছবি। যা নিকি ক্যারো পরিচালিত ১৯৯৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘দ্য বালড অব মুলান’ নামের একটি চীনা অ্যানিমেটেড লাইভ অ্যাকশন সিনেমার রিমেক। ডিজনির নতুন সিনেমা ‘মুলান’ নিয়ে ২ বছর ধরেই অনেক আলোচনা চলছিলো।

হুয়ে মুলান কিংবদন্তি তখনই জীবিত হয়ে উঠেন যখন চীনের আশা এবং অনুপ্রেরণার দরকার হয়। শিল্প ও সাহিত্যে মুলান একটি অনবদ্য নাম। তার নামে ১০টিরও বেশি ছায়াছবি ও মঞ্চ নাটক হয়েছে। আধুনিক উপন্যাস আর গবেষণায় মুলান এখনো জনপ্রিয়।

তার মূর্তি পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় স্থাপন করা রয়েছে। চীনের মানুষের কাছে আজও হুয়ে মুলান সাহসিকতা আর সম্মানের অপর নাম।

শুধু ‘মুলান’ ছবিটি নয়, স্টার সিনেপ্লেক্সে মুক্তি পেতে যাচ্ছে গুপ্তচরবৃত্তি অ্যাকশন-থ্রিলার চলচ্চিত্র ‘টেনেট’। এটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন ক্রিস্টোফার নোলান। নোলানের সঙ্গে চলচ্চিত্রটি সহপ্রযোজনা করেছেন এমা থমাস। যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সহ-প্রযোজনায় নির্মিত চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন জন ডেভিড ওয়াশিংটন, রবার্ট প্যাটিনসন, এলিজাবেথ ডেবিকি, মাইকেল কেইন এবং কেনেথ ব্র্যানো।

‘ইনসেপশন’, ‘দ্য ডার্ক নাইট’, ‘ডানকির্ক’ এবং অন্যান্য ছবিতে দর্শকদের বিনোদন দেওয়ার জন্য নোলান আরো একবার নিজের যাদুটি দেখাতে পেরেছেন। ‘টেনেট’ বক্স অফিসে ৫০ মিলিয়ন ডলারের বেশি আয় করতে সক্ষম হয়েছে।

এক দশক ধরে টেনেটের কেন্দ্রীয় ধারণাগুলি নিয়ে আলোচনার পরে চিত্রনাট্য রচনায় নোলান পাঁচ বছরেরও বেশি সময় নিয়েছিলেন। ২০১৯ সালের মার্চে এর কাস্টিং শুরু হয়েছিল, মে মাসে ডেনমার্ক, এস্তোনিয়া, ভারত, ইতালি, নরওয়ে, যুক্তরাজ্য, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে চিত্রগ্রহণের কাজ শুরু করেছেন।