বয়কটের প্রতিবাদে ঐক্যের ডাক দিলেন কাঞ্চন-ডিপজল রুবেল

0
22

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ১৮টি সংগঠন। বিষয়টি নিয়ে চলচ্চিত্রপাড়ায় উত্তাল পরিবেশ বিরাজ করছে।

বয়কটের প্রতিবাদে এফডিসিতে ঐক্যের ডাক দিয়েছেন চলচ্চিত্রের অভিনয়শিল্পী ও তারকারা। রোববার বিকেলে এফডিসির জহির রায়হান মিলনায়তনের প্রদর্শন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কিংবদন্তি চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, ডিপজল, অঞ্জনা, মাসুম বাবুল, আলেকজান্ডার বো, জ্যাকি আলমগীর, আজিজ রেজা, আমির সিরাজী, ফরহাদ হোসেন, ইমদাদুল হক খোকন, আব্দুল আজিজ, আসিফ ইকবাল, মারুফ আকিব, শাহনূর, জাকির হোসেন, রিনা খান, জেসমিন, হায়দার আলী, হাসমত, আন্না, সাগর, জয় চৌধুরী সহ আরও অনেকে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনায় ছিলেন নায়ক রুবেল।

চিত্রনায়িকা অঞ্জনা তার বক্তবে বলেন, কীসের আন্দোলন, কার সঙ্গে আন্দোলন? কেন বয়কট, কার জন্যে বয়কট? আপনারা শিল্পী সমিতির সঙ্গে আন্দোলন করছেন নাকি ব্যক্তিগত স্বার্থে বয়কট করছেন? আমরা ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিল করতে কেউ শিল্পী সমিতির সঙ্গে জড়িত না। মিশা সওদাগর ও জায়েদ খানকে অন্যায়ভাবে বয়কট করলে আমরা কেউই শিল্পী সমিতিতে থাকবো না। এসব আন্দোলন ভুলে আসুন আমরা একসঙ্গে ভালো কাজ করি। তালিকা থেকে যাদের বাদ দেয়া হয়েছে আমরা তাদের কাজের যাচাই-বাছাই করে আবার ফিরিয়ে নেবো।

চলচ্চিত্র অভিনেতা-প্রযোজক ডিপজল বলেন, ডিপজল বেঁচে থাকতে শিল্পী সমিতির ক্ষতি করবে এমন কারও বাংলাদেশ জন্ম হয়নি। মিশা-জায়েদ ভালো কাজ করছে এটা কি ওদের অপরাধ? চলচ্চিত্রের কী হবে তা কেউ না ভেবে ষড়যন্ত্র নিয়ে ব্যস্ত। সামনে ঈদ কেউ ভেবেছেন যারা এই সময়ে অর্থ কষ্টে আছে তাদের কী হবে? আছেন শুধু ষড়যন্ত্র নিয়ে। আমি ডিপজল যতদিন বেঁচে আছি চলচ্চিত্রের কেউ না খেয়ে মরবে না। আমি সব সময় চলচ্চিত্রর পাশে ছিলাম, আছি। আসুন সব ভেদাভেদ ভুলে চলচ্চিত্রর কল্যাণে চিন্তা করি। সংবাদ সম্মেলনে এ অভিনেতা পাঁচটি নতুন ছবির ঘোষণা দিয়েছেন। করোনাকাল চলে গেলে ছবির কাজ শুরু করবেন।

মিশা সওদাগর বলেন, আমরা কোনো রকম দলাদলি, হিংস্রতা, বিদ্বেষ চাই না। আমরা চাই চলচ্চিত্রের উন্নয়ন। আমাদের শিল্পী সমিতির মূল কাজ শিল্পীদের স্বার্থ সংরক্ষণ। আমরা সবাইকে সম্মান করে কাজ করে যাচ্ছি। কিন্তু দুঃখ একটাই, আমাকে বয়কট করা হলো। জায়েদের যদি কোনো অন্যায় থাকে, আমাদের লিখিত আকারে দিতেন। আমরা নিজেরা বসে সমস্যার সমাধান করতাম।

জায়েদ খান বলেন, ‘আমি কী এমন করেছি, যে কারণে আমাকে হেয় করা হচ্ছে। এখানে অন্য কাউকে নয়, আমাদের দুজনকে (মিশা-জায়েদ) ছোট করা হচ্ছে। শিল্পীকে কেউ এ ভাবে বয়কট করতে পারেন না। কেন চলচ্চিত্র অঙ্গনকে তারা একটি সার্কাসে পরিণত করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here