নুসরাতের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ

0
29

পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় নায়িকা ও বসিরহাটের সাংসদ নুসরাত জাহান। লকডাউনের জন্য সেখানকার নিম্ন আয়ের মানুষেরা বিপাকে পড়েছেন। তাইতো সুযোগ কাজে লাগিয়ে গুজব ছড়ানো হচ্ছে।

সম্প্রতি  নুসরাত জাহানের সংসদীয় কেন্দ্র বসিরহাটের এক ‘ক্ষুধার্ত’ বৃদ্ধের ভিডিও ভাইরাল হয়।

রাজ্য বিজেপির ফেসবুক পেজ থেকে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়। যেখানে এক বৃদ্ধকে আর্তনাদ করে বলতে শোনা যায় তিনি ২ দিন ধরে অভুক্ত। মুখ্যমন্ত্রীর কাছে বৃদ্ধ করুণ আর্তি জানিয়ে বলছিলেন- ‘মা আমাদের বাঁচান। আমরা আপনার সন্তান৷ আমাদের একটু দেখুন৷ আমরা দু’দিন ধরে কিছু খাইনি৷ আর সহ্য করতে পারছি না৷ এবার হয় খেতে দিন, নাহলে আমাদের গুলি করে মেরে ফেলুন।’

ভারতীয় গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনের খবরে বলা হয়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশাপাশি তিনি ওই একই আবেদন জানিয়েছেন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ নুসরাত জাহান এবং সিপিএম বিধায়ক রফিকুল ইসলামের কাছেও৷ এই ‘সাজানো’ ভিডিওটি শেয়ার করেই বঙ্গ বিজেপির তরফে দাবি করা হয়, ‘শুনতে পাচ্ছ কি মানুষের কান্না? তৃণমূল রেশন লুট বন্ধ করুন!’

এই ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই নেটদুনিয়ায় জোর শোরগোল শুরু হয়। সমালোচিত হন নুসরাত ও তার দল। এরপরই রাজ্য পুলিশ ময়দানে নেমে রহস্য ভেদ করেন। ওই বৃদ্ধের ভিডিওটি সম্পূর্ণ ভুয়া এবং ইচ্ছেকৃভাবে শুট করানো বলে দাবি করা হয়েছে তাদের পক্ষ থেকে।

জানা যায়, ওই বৃদ্ধ আদতে যাত্রাশিল্পী, তাই তাকে অভিনয়ের কথা বলা হয়েছিল। এ প্রসঙ্গে ওই বৃদ্ধ যাত্রাশিল্পী পুলিশকে জানিয়েছেন, ‘আমার নাম মোবারক মণ্ডল৷ আমার বাড়ি বেগমপুরে৷ আমি সরকারি রেশন পাই৷ আমার কোনও অভিযোগ নেই৷ আমি আগে যাত্রা করতাম৷ পাড়ার কয়েকটি ছেলে বলেছিল- কাকা, লকডাউনের মধ্যে খেতে পাচ্ছো না- এমন একটা অভিনয় করে দেখাও তো! তো আমি দেখালাম৷ সেটাই বোধ হয় ওরা পোস্ট করেছিল।” রাজ্য পুলিশের টুইটারে শেয়ার করা হয়েছে ওই ভিডিও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here