সানির পরামর্শ

0
61

সাবেক নীল ছবির দুনিয়ার বাসিন্দা। বর্তমান বলিউড অভিনেত্রী ও আইটেম কন্যা সানি লিওন। ‘#মিটু’ আন্দোলনকে আরও বড় আকার দেয়ার পক্ষে তিনি।

কর্মক্ষেত্রে যেসব মহিলা যৌন হয়রানির শিকার, তারা মুখ খুললে এমন একটি সামাজিক অপরাধের বিরুদ্ধে মানুষ আরও বেশি করে সচেতন হবেন বলেই মনে করেন সানি। তার বিশ্বাস, সামাজিক সচেতনতাই এমন অপরাধকে আটকাতে পারে। এ ক্ষেত্রে অপরাধীদের মুখ থেকে মুখোশ জনসমক্ষে খুলে দেওয়ার জন্য তিনি সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করার পরামর্শ দিয়েছেন। খবর ভারতীয় গণমাধ্যমের।

২০১৮ সাল থেকে এ দেশে ‘#মিটু’ কার্যত আন্দোলনের রূপ নিতে শুরু করে। বিভিন্ন পেশা থেকে মহিলা সহকর্মীকে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠতে থাকে। তার ব্যতিক্রম নয় বলিউডও। বলিউডের একাধিক সেলেব্রিটির বিরুদ্ধে ‘#মিটু’-র অভিযোগ ওঠে।

তনুশ্রী দত্ত প্রভাবশালী অভিনেতা নানা পাটেকরের বিরুদ্ধে মুখ খোলেন। তনুশ্রীর অভিযোগ ছিল, ২০০৮ সালে ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ ছবির শুটিংয়ের সময় তাকে নানাভাবে হয়রানি করেন নানা। অবশ্য, তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন এই বলি-অভিনেতা।
তবুও, তনুশ্রীর অভিযোগের পর পরই বহু অভিনেত্রীকে ‘#মিটু’ নিয়ে মুখ খুলতে দেখা যায়। তার জেরে অনেক অভিনেতা-প্রযোজক-পরিচালককেই বেকায়দায় পড়তে হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here