চট্রগ্রামে গড়ে উঠছে ”আইয়ুব বাচ্চু চত্বর”

প্রয়াত ব্যান্ড কিংবদন্তী আইয়ুব বাচ্চুর স্মরণে তার জন্মস্থান চট্রগ্রামে এবার গড়ে উঠছে আইয়ুব বাচ্চু চত্বর। চট্টগ্রাম নগরীর প্রবর্তক মোড়কে ঘোষণা করা হবে আইয়ুব বাচ্চু চত্বর হিসেবে। আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর পর তার নামাজে জানাজায় অংশ নিয়ে চট্রগ্রামের সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন আইয়ুব বাচ্চুর স্মৃতি সংরক্ষণ করার উদ্যোগ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। সেই ঘোষণার অংশ হিসেবে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ প্রবর্তক মোড়কে আইয়ুব বাচ্চু চত্বর হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন,”আইয়ুব বাচ্চু আমাদের গর্ব। তার স্মৃতি সংরক্ষণের জন্য প্রবর্তক মোড়কে আইয়ুব বাচ্চু চত্বর করা এবং তার বিখ্যাত গান রুপালি গিটারের সেই গিটার স্থাপন করার জন্য উদ্যোগ নিয়েছি। সৌন্দর্যবর্ধনের আওতায় এ স্থাপনা নির্মাণের কাজ চলছে।” এরইমধ্যে সংগীতাঙ্গনের অনেকেই এই ঘোষণা ও উদ্যোগের জন্য চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

গত বছরের ১৮ আগস্ট চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের গোলপাহাড় মোড় থেকে প্রবর্তক মোড় পর্যন্ত চার লেন বিশিষ্ট সড়কটির সৌন্দর্যবর্ধন, সবুজায়ন ও আধুনিকায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করে। অডিওস ইঙ্ক ও স্ক্রিপ্ট যৌথ উদ্যোগে এ সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ করার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়।

সেই চুক্তি মোতাবেক সৌন্দর্যবর্ধনের আওতায় প্রবর্তক মোড়ে বসানো হচ্ছে আইয়ুব বাচ্চুর সেই রুপালি গিটারের আদলে একটি গিটার। এরই মধ্যে অধিকাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। নিচু এলাকায় পানি জমার আশঙ্কার কারণে প্রবর্তক মোড়ে আপাতত কাজ স্থগিত রয়েছে। এই এলাকার ড্রেনের কাজ সম্প্রসারণ করার পর বাকি অংশের কাজ শুরু করা হবে।

বাংলাদেশের ব্যান্ড সঙ্গীত জগতে আইয়ুব বাচ্চুর অবদান অসামান্য । গানের পাশাপাশি গিটারেও ভক্তদের মাত করেছেন তিনি। আইয়ুব বাচ্চুর গাওয়া ”কষ্ট পেতে ভালোবাসি”,”সেই তুমি কেন অচেনা হলে”,”একদিন ঘুম ভাঙ্গা শহরে”,”মেয়ে ও মেয়ে”,”কবিতা সুখ ওড়াও”,”এক আকাশ তারা” গানগুলো ঘুরেছে মানুষের মুখে মুখে।

১৯৭৮ সালে সঙ্গীতজীবন শুরু করেন আইয়ুব বাচ্চু। আইয়ুব বাচ্চু একাধারে গায়ক, লিড গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার, প্লেব্যাক শিল্পী ও সঙ্গীত পরিচালক ছিলেন।

সোলসের হয়ে ব্যান্ড সঙ্গীতে পা রাখার পর ১৯৯০ সালে নিজের ব্যান্ড দল প্রতিষ্ঠা করেন আইয়ুব বাচ্চু। ব্যান্ডের নাম রাখেন ”লিটল রিভার ব্যান্ড”। পরবর্তীতে এর নাম বদলে রাখা হয় ”লাভ রান্‌স ব্লাইন্ড”। ওই বছরই এলআরবি ডাবল অ্যালবাম দিয়ে তাদের যাত্রা শুরু করে। ১৯৯৫ সালে বাচ্চু তার তৃতীয় একক অ্যালবাম ”কষ্ট”বের করেন। বাংলাদেশের সর্বকালের সেরা একক অ্যালবামগুলোর মধ্যে একটি এটি।

গেলো বছরের ১৮ অক্টোবর ভক্ত-শ্রোতাদের শোকের সাগরে ভাসিয়ে চিরবিদায় নেন এই ব্যান্ড কিংবদন্তী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here