চার দিনের রিমান্ডে নওশাবা

রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় তথ্য প্রযুক্তি আইনে দায়ের করা মামলায় অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদকে চারদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ রোববার মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তদন্ত কর্মকর্তা সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে আবেদন করেন। অন্যদিকে রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবী। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম মাজাহারুল হক চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আটক অভিনেত্রী ও মডেল কাজী নওশাবা আহমেদের বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় ৫৭ ধারায় (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে) মামলা করা হয়।

গতকাল ৪ আগস্ট সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদকে আটক করে র‍্যাব। এর আগে গতকাল শনিবার বিকেলে নিরাপদ সড়কের দাবিতে চলমান আন্দোলন নিয়ে ফেসবুকে লাইভে আসেন তিনি। ফেসবুক লাইভে দাবি করেন, রাজধানীর জিগাতলায় আন্দোলনরত একজন শিক্ষার্থীর চোখ তুলে ফেলা ও চার শিক্ষার্থীকে মেরে ফেলা হয়েছে। এরপর রাতে তাকে উত্তরা থেকে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদকে আটক করে র‍্যাব।

ফেসবুক লাইভে নওশাবা বলেছিলেন, ‘জিগাতলায় আমাদের ছোট ভাইদের (শিক্ষার্থী ইঙ্গিত করে) একজনের চোখ তুলে ফেলা ও চারজনকে মেরে ফেলা হয়েছে। একটু আগে ওদেরকে অ্যাটাক করা হয়েছে। ছাত্রলীগের ছেলেরা সেটা করেছে। প্লিজ-প্লিজ ওদেরকে বাঁচান। তারা জিগাতলায় আছে। আপনারা এখনই রাস্তায় নামবেন ও আপনাদের বাচ্চাদের নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাবেন, এটা আমার রিকোয়েস্ট। বাচ্চাগুলো নিরাপত্তাহীনতায় আছে। যে পুলিশরা আছেন আপনারা অবশ্যই নিজেদের বাচ্চাদের প্রোটেকশন দেন। আপনারা প্লিজ কিছু একটা করেন। আপনারা সবাই একসাথে হোন। আমি এ দেশের মানুষ, এ দেশের নাগরিক হিসেবে আপনাদের কাছে রিকোয়েস্ট করছি।’

তবে ফেসবুক লাইভে নওশাবার বলা ওই ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়নি। পরে জানা যায় মৃত্যুর খবরটি গুজব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here