শ্রাবন্তীর সংসারে ভাঙ্গনের সুর

এবার ভাঙ্গনের সুর বেজে উঠেছে জনপ্রিয় মডেল-অভিনেত্রী শ্রাবন্তীর সংসারে। তার সংসার ভাঙ্গনের গুঞ্জন শোনা গিয়েছিলো গেল বছরের শেষদিকেই। সে সময় শ্রাবন্তী হঠাৎ দেশে ফিরে আসেন সন্তানদের নিয়ে। আর তখন থেকেই শোনা যাচ্ছিল স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলমের সঙ্গে টানাপোড়েন চলছে তার। অবশেষে সেই গুঞ্জনই সত্যি হলো। এবার শ্রাবন্তী নিজেই সংবাদমাধ্যমে জানালেন, তাকে তালাকের আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন তার স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম।

রোববার সকালে তিনি জানান, গত ৭ মে তাকে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন তার স্বামী মোহাম্মদ খোরশেদ আলম। বগুড়া সদরের কালীতলার শিববাড়ি সড়কে শ্রাবন্তীর বাবার বাসার ঠিকানায় এই নোটিশ পাঠানো হয়।

এ প্রসঙ্গে শ্রাবন্তী আরও জানান,যুক্তরাষ্ট্রে বসেই তিনি তালাকের নোটিশের খবর পান। এরপর শ্রাবন্তী গত ২৫ জুন দেশে ফিরেন। দেশে ফেরার পর স্বামী খোরশেদ আলমের সঙ্গে নানাভাবে যোগাযোগের চেষ্টা করেও শ্রাবন্তী তার দেখা পাননি। এমনকি শ্বশুরবাড়িতে গিয়েও ফিরে আসতে হয়েছে, তাকে ও তার দুই মেয়েকে সেই বাসাতে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। এরপর থেকে শ্রাবন্তী বর্তমানে বগুড়াতেই রয়েছেন। সেখানে তার সঙ্গে আছে সাত বছরের মেয়ে রাবিয়াহ আলম ও সাড়ে তিন বছরের মেয়ে আরিশা আলম। আগামী ৪ জুলাই মেয়েদের সঙ্গে নিয়ে ঢাকায় ফিরবেন। তিনি স্বামীর বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ তুলেছেন। তার দাবি, খোরশেদ আলম অন্য মেয়ের সঙ্গে প্রেম করছেন দীর্ঘদিন। গত ২৬ মে রাজধানীর খিলগাঁও থানায় তিনি স্বামীর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন আর যৌতুকের মামলাও করেছেন।

এদিকে শ্রাবন্তীর অভিযোগ মিথ্যে দাবি করে তার স্বামী খোরশেদ আলম পাল্টা অভিযোগ এনেছেন শ্রাবন্তীর বিরুদ্ধে। তিনি দাবি করেছেন, ২০১০ সালের ২৯ অক্টোবর বিয়ের পর থেকে শ্রাবন্তীর বিভিন্ন আচরণে তিনি ছাড় দিলেও শ্রাবন্তী শেষ পর্যন্ত সেই বিষয়গুলো শুধরে নিতে পারেনি। বরং তা আগের মতোই আছে। যে কারণে শ্রাবন্তীর সাথে আর সংসার করতে ইচ্ছুক না তিনি। আর পরকীয়ার যে দোষ শ্রাবন্তী তাকে দিয়েছে তা পুরোপুরি মিথ্যা।

উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ২৯ অক্টোবর জনপ্রিয় মডেল-অভিনেত্রী শ্রাবন্তী ও মোহাম্মদ খোরশেদ আলম ভালোবেসে বিয়ে করে সংসার জীবন শুরু করেন। বিয়ের পর থেকেই শোবিজ দুনিয়া থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে সংসারে মন দেন শ্রাবন্তী। সর্বশেষ ২০১০ সালে নূরুল আলম আতিকের ‘ডালিম কুমার’ নাটকে অভিনয় করতে দেখা গিয়েছিলো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here