ভাইজান এল রে। কিন্তু রাজত্ব করতে পারল কি?

0
221

কলকাতার ছবি ভাইজান এল রে। ছবিটি গেলো ঈদে কলকাতায় মুক্তি পেয়েছে। শিগগিরই বাংলাদেশেও ছবিটি মুক্তি পাবে বলে জানা গেছে। কলকাতার একটি গণমাধ্যমে এই ছবির রিভিউ প্রকাশ করা হয়েছে। পাঠকদের জন্য ছবির সেই রিভিউ তুলে ধরা হলো।

পরিচালকঃ জয়দীপ মুখোপাধ্যায়

অভিনয়ে- শাকিব খান, শ্রাবন্তী, পায়েল, শান্তিলাল মুখোপাধ্যায়, রজতাভ দত্ত।

জয়দীপ মুখোপাধ্যায়ের চতুর্থ ছবি ‘ভাইজান এল রে’ দেখতে গিয়ে মনে হল, গল্পের প্রথমভাগটা অতটা বড় না হলেও চলত। বরং, পায়েল আর শাকিবের অপ্রয়োজনীয় রোম্যান্সের গান বাদ দিলে চিত্রনাট্যে খানিকটা ভারসাম্য আসত।

ছবিটি মূলত অ্যাকশন কমেডি, যাকে অঘোষিতভাবে ডেভিড ধাওয়ানের বিখ্যাত ছবি ‘জুড়য়া’-র বাংলা রিমেক বলা যেতে পারে। তবে একটু অন্যরকম! গল্পের মধ্যে সেরকম নতুনত্ব কিছু নেই। জন্মের পর হারিয়ে যাওয়া দুই যমজ ভাই… এক ভাই আজান (শাকিব) গরিবের ঘরে মানুষ এবং ডাকাবুকো। আর এক ভাই উজান (শাকিব) জমিদারের বাড়িতে জামাইবাবুর হাতে অত্যাচারিত হয়ে জুবুথুবু। তারপর সম্পূর্ণ এন্টারটেনমেন্ট প্যাকেজ! পরিচালক স্ক্রিপ্টে বিশেষ টুইস্ট দেওয়ার চেষ্টা করেননি।

গতে বাঁধা স্ক্রিপ্টের সঙ্গে শাকিব খান, শ্রাবন্তী, পায়েলের গ্ল্যামার কোশেন্ট মিশিয়ে একটা এমন ছবি বানিয়েছেন, যেটা দেখতে গেলে মাথা খাটানোর বিশেষ দরকার নেই। তবে হ্যাঁ, এই ছবিতে অন্তত সমস্ত সুতোকে একটা জায়গায় বাঁধার চেষ্টা করেছেন পরিচালক। তাতে অন্তত ছবির শেষে ‘ওটা কেন এমন হল’ টাইপের প্রশ্ন মাথায় আসবে না। কিন্তু ওই… চিত্রনাট্যের দুর্বলতার পাশাপাশি সংলাপের জোরও তেমন নেই। ফলে কোথাও নিজে থেকেই হাসি পায়, কোথাও আবার জোর করে হাসতে হয়! অভিনয়ে শাকিব খান যথাযথ। তবে খুব একটা নতুনত্ব কিছু পাওয়া যায়নি তাঁর অভিনয়ে। হিয়া (শ্রাবন্তী) বা রুনা-র (পায়েল) বিশেষ কিছু করার ছিল না। শ্রাবন্তী তবুও ভালো।

কিন্তু পায়েলের জোর করে ‘স’- এর উচ্চারণটা বরং বেশ বিরক্তিকরই লেগেছে। অভিনয়ের কথা যদি বলতে হয় তবে ভিলেনের চরিত্রে শান্তিলাল বেশ দাপুটে অভিনয় করেছেন। বাকিরা কেউই তেমন উল্লেখযোগ্য নন। আলাদা করে বলতে হয় রজতাভ দত্তর কথা। তিনি ভালো। কিন্তু নায়িকার বাবার চরিত্রে সেই এক কমিক রোলের গণ্ডিটা থেকে তিনি এবার একটু বেরিয়ে আসতেই পারেন!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here