‘অভিনয়ের জায়গাটা ভিন্ন’

0
41

টালিগঞ্জের জনপ্রিয় নায়িকা ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। জন্ম কলকাতায় হলেও বাংলাদেশের সাথে তার আতীথিয়তা বেশ চোখে পড়ার মতো। এদেশের ছবিতে অভিনয় করেও তিনি সমান জনপ্রিয়তা ও খ্যাতি লাভ করেছেন। ঢালিউডের বেশকিছু সিনেমায় অভিনয় করে দর্শক হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন এই চিত্রনায়িকা। তারই ধারাবাহিকতায় দীর্ঘদিন পর আবারো বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে ঋতুপর্ণা অভিনীত নতুন ছবি মুক্তি পাচ্ছে পেয়েছে শুক্রবার। ‘একটি সিনেমার গল্প’ শিরোনামে নতুন এই ছবি মুক্তি নিয়ে তিনি বেশ আগে ভাগে সিনেমাটির প্রচারণার জন্যে বাংলাদেশে এসেছিলেন। দীর্ঘদিন পর বাংলাদেশের সিনেমাতে অভিনয় প্রসঙ্গসহ অন্যান্য বিয়ে মুখোমুখি হয়েছিলেন Binodon24.com এর সঙ্গে।

কেমন আছেন?
ভালো তো থাকতেই হবে। যাই হোক বেশ ভালোই আছি।

দীর্ঘদিন পর বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে আপনার সিনেমা মুক্তি পেলো অনুভূতি কেমন?

আমি আসলে কখনো দুই বাঙলাকে আলাদা করে দেখি না। কলকাতা কিংবা বাংলাদেশে আমার অভিনীত সিনেমা মুক্তি পেলে অন্য একটা অনুভুতি কাজ করে। মনে হয় আমার দেশে আমার সিনেমাটি মুক্তি পাচ্ছে। যদিও দীর্ঘদিন পর বাংলাদেশ সিনেমায় কাজ করা আমার।

বাংলাদেশের সিনেমায় এত সময় নিয়ে কাজ করার কি কোনো কারণ ছিল?
কারণ বলতে তেমন কিছু না। বিষয়টা এমন ছিল কাজের অফার পেলেও কাজ করার সুযোগ হয়ে ওঠেনি। সময় আর ভালো গল্প না পাওয়ার জন্য এতটা সময় পার করতে হয়েছে।

‘একটি সিনেমার গল্প’ সিনেমায় কীভাবে যুক্ত হলেন?

আলমগীর সাহেবের সাথে আমার অনেক ভালো একটা সম্পর্ক। সেখান থেকে তিনি আমায় এই সিনেমায় কাজ করার জন্য বলেন। তখন আমি সিনেমার গল্প পড়ে বুঝতে পারলাম এই চলচ্চিত্রটি আমাদের (সিনেমার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ) নিয়ে নির্মাণ হচ্ছে তাই কাজটি করা আমার।

নায়ক আলমগীর ও পরিচালক আলমগীর পার্থক্য কি?

আলমগীর সাহেবকে আমি প্রথম পরিচালক হিসেবে পেলাম। তবে নায়ক আলমগীর ও পরিচালক আলমগীর এর মধ্যে পার্থক্য তেমন চোখে পড়েনি। তবে নায়ক হিসেবে যতটা প্রখর তিনি, তেমনি পরিচালক হিসেবেও। এককথায় তার কাছে কাজটা আগে।

আরিফিন শুভর সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন?

অভিনয়ের জায়গাটা ভিন্ন। এখানে বয়সের বিষয়টা চরিত্রের উপর হলেও এই সিনেমায় আমি ও শুভ বেশ মন দিয়ে করেছি। শুভ’র সাথে অভিনয় করে বেশ ভালো লেগেছে। সে খুব ভালো করেছেন। এই ছবিতে তাকে আমরা নতুন রূপে পাচ্ছি।

বাংলাদেশের কোন জায়গা আপনার সবচেয়ে ভালো কাগে ?

বাংলাদেশ আমার কাছে বরাবর একটি প্রিয় জায়গা। যখনি এদেশে আসি তখনে মনের ভিতর অন্যরকম একটা অনুভূতি কাজ করে। মনে হয় নিজের দেশে আমি আছি। সত্যি দেশ আর এদেশের মানুষের আতীথিয়তা আমায় বরাবর মুগ্ধ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here