”জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৬” পাচ্ছেন যারা

প্রায় চূড়ান্তর পথে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ এর জন্য চলচ্চিত্র জুরি বোর্ড মনোনীত নির্বাচিতদের নাম অনুমোদনের জন্য জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে। জাতীয় পুরস্কার সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে অনুমোদনের পর শীগ্রই ঘোষণা করা হবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। বিজয়ীদের হাতে ট্রফি তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৬ সালে মুক্তি পাওয়া চলচ্চিত্রের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সেরাদের দেয়া হবে পুরস্কার। ২৮ টির মধ্যে এবার ২৫টি বিভাগে পুরস্কার দেয়া হবে। শ্রেষ্ঠ গায়িকা, শ্রেষ্ঠ কৌতুক অভিনয়শিল্পী এবং শিশু শিল্পী (বিশেষ) এই ৩ বিভাগে কোনো শিল্পী যোগ্য হিসেবে বিবেচিত হননি বলে জানা গেছে। আর এবার ”অজ্ঞাতনামা”,”আয়নাবাজি”,”শঙ্খচিল”,এবং ”কৃষ্ণপক্ষ” এই চারটি চলচ্চিত্র জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ এর বেশিরভাগ পুরস্কার পেতে যাচ্ছে বলে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬’তে এবার যুগ্মভাবে আজীবন সম্মাননা পেতে যাচ্ছেন নন্দিত চিত্রনায়িকা ফরিদা আক্তার ববিতা ও ”মিয়া ভাই” খ্যাত চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান ফারুক।

শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র বিভাগে ”অজ্ঞাতনামা” রয়েছে প্রায় চূড়ান্তর তালিকায়। শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র বিভাগে ”অজ্ঞাতনামা” চলচ্চিত্রের জন্য রয়েছে ফরিদুর রেজা সাগরের নাম। শ্রেষ্ঠ পরিচালক হিসেবে সেরা পরিচালকের সম্ভাব্য তালিকায়  নির্মাতা অমিতাভ রেজা চৌধুরী রয়েছেন তার ”আয়নাবাজি” চলচ্চিত্রটির জন্য। এছাড়া ”অজ্ঞাতনামা” চলচ্চিত্রটির জন্য নির্মাতা,অভিনেতা তৌকীর আহমেদের নাম রয়েছে এই তালিকায়। শ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে ”আয়নাবাজি” চলচ্চিত্রের জন্য চঞ্চল চৌধুরী ও ”অস্তিত্ব” চলচ্চিত্রের জন্য নুসরাত ইমরোজ তিশা শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগের সেরা হিসেবে প্রস্তাবিত হয়েছেন।

পার্শ্ব চরিত্রের সেরা অভিনেতা হিসেবে যৌথভাবে আলীরাজ ও ফজলুর রহমান বাবুর নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। চূড়ান্তভাবে পার্শ্ব চরিত্রের সেরা অভিনেত্রী হিসেবে ”কৃষ্ণপক্ষ” চলচ্চিত্রের জন্য তানিয়া আহমেদের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। ”অজ্ঞাতনামা” চলচ্চিত্রের জন্য সেরা খল চরিত্রের অভিনেতা হিসেবে চূড়ান্তভাবে শহীদুজ্জান সেলিমের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী হিসেবে বিবেচনায় রাখা হয়েছে আনুম রহমান খান (শঙ্খচিল)এর নাম।

”মেয়েটি এখন কোথায় যাবে” চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালক হিসেবে প্রস্তাব করা হয়েছে ইমন সাহার নাম। একই চলচ্চিত্রের ”বিধিরে ও বিধি বিধি” গানের জন্য গীতিকার হিসেবে গাজী মাজহারুল আনোয়ার এর নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া ”দর্পণে বিসর্জন” চলচ্চিত্রটির ”অমৃত মেঘের বারি” গানের জন্য সৈয়দ ওয়াকিল আহাদ রয়েছেন মূখ্য বিবেচনায়। সেরা নৃত্য পরিচালকের তালিকায় মো: হাবিবের নাম রয়েছে ”নিয়তি” চলচ্চিত্রটির জন্য। ”অজ্ঞাতনামা” চলচ্চিত্রের জন্য সেরা কাহিনীকার তৌকির আহমেদ এবং ”আন্ডার কনস্ট্রাকশন” চলচ্চিত্রের জন্য রুবাইয়াত হোসেন পেয়েছেন সেরা চিত্রনাট্যকারের মনোনয়ন। এছাড়া যুগ্মভাবে অনম বিশ্বাস ও আদনান আদীব খান শ্রেষ্ঠ সংলাপ রচয়িতা বিভাগে সেরা হতে পারেন।

এছাড়া অন্যান্য বিভাগে যাদের নাম রয়েছে,তারা হলেন : শ্রেষ্ঠ সম্পাদক ইকবার আহসানুল কবির (আয়নাবাজি), শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক উত্তম গুহ (শঙ্খচিল), সেরা চিত্রগাহক রাশেদ জামান (আয়নাবাজি), রিপন নাথ সেরা শব্দগ্রাহক (আয়নাবাজি), শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজ-সজ্জা বিভাগে সাত্তার (নিয়তি) এবং শ্রেষ্ঠ মেক-আপম্যান বিভাগে মানিক (আন্ডার কনস্ট্রাকশন)।” সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বিভাগে চূড়ান্তভাবে শ্রেষ্ঠ হয়েছে ঘ্রাণ” চলচ্চিত্রটি। চূড়ান্তভাবে শ্রেষ্ঠ প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ”জন্মসাথী”,প্রযোজক একাত্তর মিডিয়া লিমিটেড ও মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর।

আজীবন সম্মাননা বিভাগ ছাড়া বাকি সব বিভাগেই রাখা হয়েছে বিকল্প নাম। শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র বিভাগে বিকল্প হাবিবুর রহমান ও ফরিদুর রেজা সাগর ( শঙ্খচিল)। বিকল্প শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক তৌকির আহমেদ (অজ্ঞাতনামা) প্রধান চরিত্রে বিকল্প অভিনেতা শাকিব খান (শিকারি), প্রধান চরিত্রে বিকল্প অভিনেত্রী কুসুম শিকদার (শঙ্খচিল), পার্শ্ব চরিত্রে বিকল্প সেরা অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু (অজ্ঞাতনামা)।

সেরা সংগীত পরিচালক (বিকল্প) এস আই টুটুল (কৃষ্ণপক্ষ), বিকল্প শ্রেষ্ঠ গায়ক জেমস (আমি আকাশের কাজে জানতে চাই- সুইট হার্ট)। কৃষ্ণপক্ষ চলচ্চিত্রে ”ঠিকানা আমার নোটবুকে লেখা” গানের জন্য সেরা গীতিকার বিভাগে বিকল্প গীতিকার হুমায়ূন আহমেদ। বিকল্প সেরা সুরকার এস আই টুটুল (কৃষ্ণপক্ষ),নৃত্য পরিচলক (বিকল্প) মো: হাবিব (অনেক দামে কেনা)।

বিকল্প তালিকায় শ্রেষ্ঠ কাহিনীকার হিসেবে আছেন রুবাইয়াত হোসেন (আন্ডার কনস্ট্রাকশন), আয়নাবাজির জন্য বিকল্প সেরা চিত্রনাট্যকার অনম বিশ্বাস ও গাউসুল আলম। বিকল্প সেরা সংলাপ রচয়িতা রুবাইয়াত হোসেন (আন্ডার কনস্ট্রাকশন)। এছাড়া এই বিকল্প তালিকায় রয়েছেন : শ্রেষ্ঠ সম্পাদক ক্যাটাগরিতে সুজন মাহমুদ (আন্ডার কনস্ট্রাকশন), শ্রেষ্ঠ শিল্প নির্দেশক শহীদুল ইসলাম (আয়নাবাজি), সেরা চিত্রগাহক এনামুল হক সোহেল (অজ্ঞাতনামা), সেরা শব্দগ্রাহক রিপন নাথ (আইসক্রিম), শ্রেষ্ঠ পোশাক ও সাজ-সজ্জা বিভাগে ফারজানা সান (আয়নাবাজি) এবং শ্রেষ্ঠ মেক-আপম্যান ক্যাটাগরিতে মো: সেলিম (শঙ্খচিল)।

উল্লেখ্য,জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬ প্রদানের জন্য ২০১৭ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর চলচ্চিত্র আহ্বান করে বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। ১৯৭৬ সাল থেকে দেয়া হচ্ছে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here