তালাকের প্রথম শুনানিতে গেলেন অপু বিশ্বাস, কিছুই জানাননি শাকিব

জনপ্রিয় চিত্রনায়ক শাকিব খান আর অপু বিশ্বাসের তালাকের প্রথম শুনানি আজ ১৫ জানুয়ারী (সোমবার) ছিল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি)তে হয়ে গেলো। গেল বছরের ২৪ ডিসেম্বর শাকিব ও অপুর কাছে শুনানিতে হাজির হওয়ার জন্য নোটিস পাঠানো হয় ডিএনসিসি থেকে।

আজ ডিএনসিসির অঞ্চল-৩ এর অফিসে তাদের তালাকের বিষয়টি নিয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পারিবারিক আদালতে ডিভোর্স সংক্রান্ত বিষয়ে আজ সোমবার সমঝোতা বৈঠকে অংশ নিয়েছেন অপু বিশ্বাস। তিনি বেলা সাড়ে এগারটা নাগাদ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পারিবারিক আদালতে সমঝোতা বৈঠকে হাজির হন। কিন্তু সে বৈঠকে শাকিব খানের কোন প্রতিনিধি বা শাকিব খান উপস্থিত ছিলেন না। জানা গেছে,আজ নির্ধারিত তারিখে শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের প্রথম সমঝোতা বৈঠকে অংশ নেবার কথা থাকলেও শুধুমাত্র অপু বিশ্বাস ছাড়া শাকিব খান বা তার কোন প্রতিনিধি আজকের বৈঠকে অংশ নেন নি। এমনকি শাকিব খানের পক্ষ থেকেও কোন ধরনের যোগাযোগ করা হয়নি ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের পারিবারিক আদালতের সাথে।

এ বিষয়ে আরো জানা গেছে, অপু বিশ্বাস আজকের বৈঠকে বলেছেন,”শাকিব খানের জন্য তিনি ধর্মান্তরিত হয়ে তাকে বিয়ে করেছেন,তাদের পরিবারে বর্তমানে একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। তাই তিনি সকল কিছুর পরও শাকিব খানের সাথে সংসার করতে চান”।

যেহেতু আজকের বৈঠকে শাকিব খান আসেননি তাহলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) অঞ্চল ৩ এর পরবর্তী কার্যক্রম কি হবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) অঞ্চল ৩ এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জানিয়েছেন,” আমরা অপু বিশ্বাসের কথা শুনেছি আর আজ যেহেতু শাকিব খান বা তার কোন প্রতিনিধি আসেননি তাই আগামী ফেব্রুয়ারী মাসের ১২ তারিখ (সোমবার) দ্বিতীয় বৈঠকের তারিখ নির্ধারন করা হয়েছে। সে তারিখেও যদি শাকিব খান যোগাযোগ না করেন তাহলে তৃতীয় ও শেষ বৈঠকের তারিখ জানানো হবে”।

সিটি করপোরেশনের পারিবারিক আদালত সূত্রে আরো জানা গেছে, কোনো পক্ষ তালাকের আবেদন করলে আদালতের কাজ হচ্ছে ৯০ দিনের মধ্যে উভয়কে তিনবার ডেকে সমঝোতার চেষ্টা করা। সমঝোতা না হলে স্বাভাবিকভাবেই তালাক কার্যকর হয়ে যাবে। এখানে সময় বাড়ানোর কোনো সুযোগ নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here