অভিমানী তাহসান

tahsanfff

সঙ্গীতশিল্পী ও অভিনেতা তাহসানের সবশেষ অ্যালবাম ‘উদ্দেশ্য নেই’ প্রকাশ হয় ২০১৪ সালে। কিন্তু এর মাঝেই ভক্তদের মনে হচ্ছিলো, অভিনয়ের জগতে প্রবেশ কীভাবে যেন ঢেকে ফেলছে পুরনো চিরচেনা সেই তাহসানকে। এ নিয়ে তাদের অভিযোগেরও অন্ত ছিলো না। এর পাশাপাশি, সাম্প্রতিক সময়ে ব্যক্তিগত জীবনও বেশ ঝড়-ঝাপটার মধ্য দিয়ে পার করেছেন তিনি। তাই এবার সবকিছু গুছিয়ে নেয়ার অংশ হিসেবে ভক্তদের জন্য নতুন অ্যালমান ‘অভিমান আমার’ নিয়ে আসছেন জনপ্রিয় এ শিল্পী। ব্যক্তিগত জীবনে একটু অভিমানী তাহসান তার সামগ্রিক চাওয়া-পাওয়ার প্রতিফলন হিসেবেই যেন তার এই নতুন অ্যালবামের নাম রেখেছেন অভিমান আমার। তাহসানের নতুন অ্যালবামে মোট গান থাকবে সাতটি। এর মধ্যে ৬টি গান লিখেছেন তাহসান নিজেই। আর একটি গান সম্মিলিতভাবে লিখেছেন ফাজবির তাজের সঙ্গে। সাতটি গানের মধ্যে তিনটি গানের সুর করেছেন তাহসান আর দু’টি করে বাকি চারটি গানের সুর করেছেন সাজিদ সরকার ও নাহিদ নোমান অরূপ। এ ব্যাপারে তাহসান বলেন, তাহসানের আসল পরিচয় সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে। গানের মাধ্যমেই আমি আমার ভক্তদের এতো ভালোবাসা পেয়েছি, তাদের কাছাকাছি পৌঁছাতে পেরেছি। এ মুহূর্তে আমার সম্পূর্ণ ধ্যানজ্ঞান আমার সপ্তম অ্যালবাম নিয়ে। আমার প্রত্যাশা, ভক্তরা বরাবরের মতোই এ অ্যালবামটি পছন্দ করবেন। কেন না, এ অ্যালবাম নিয়ে আমি কোনো কম্প্রোমাইজ করিনি। নিজেকে সবকিছু থেকে আলাদা করে অ্যালবামের জন্য উজাড় করে দিয়েছি। এখন কোনো অ্যালবাম প্রকাশের ক্ষেত্রে ট্রেন্ড থেকে অনেকটাই বের হয়ে এসেছে আমাদের মিউজিক ইন্ডাস্ট্রি। কিন্তু ভক্তদের কথা মাথায় রেখে নিজের অ্যালবাম প্রকাশে প্রায় উলটো পথেই হাঁটলেন তাহসান। একসঙ্গেই বের করছেন স্যাড ব্যালাড ঘরানার পুরো অ্যালবামটি। ঈদের ঠিক আগের রাতে অর্থাৎ আগামী ১ সেপ্টেম্বর ‘সিডি চয়েজ’র ব্যানারে মুক্তি পেতে যাচ্ছে অ্যালবামটি। এর পাশাপাশি, দেশের জনপ্রিয় মিউজিক স্ট্রিমিং সেবা জিপি মিউজিকে এক্সক্লুসিভলি শোনা যাবে অ্যালবামটি। এর পাশাপাশি, অভিমান আমার-এর মিউজিক ভিডিও দেখা যাবে ভিডিও স্ট্রিমিং সার্ভিস বায়োস্কোপ-এর অ্যাপ ও ওয়েব (www.bioscopelive.com) প্ল্যাটফর্মে। অভিমান আমার মিউজিক ভিডিও পরিচালনা করেছে প্রেক্ষাগৃহ ভিস্যুয়াল স্টুডিওস। জিপি মিউজিকের ওয়েবসাইট (www.gpmusic.com) থেকেও স্ট্রিম করা যাবে অ্যালবামটি। উল্লেখ্য,২০০৪ সালে তাহসানের প্রথম একক অ্যালবাম কথোপকথন, এরপর ক্রীতদাসের নির্বাণ (২০০৫), ইচ্ছে (২০০৬), নেই (২০০৮), প্রত্যাবর্তন (২০১১) এবং উদ্দেশ্য নেই বের হয়।

Facebooktwittergoogle_pluspinterestlinkedin